1. ph.jayed@gmail.com : akothadesk42 :
  2. admin@amaderkatha24.com : kamader42 :
বৃহস্পতিবার, ২১ জানুয়ারী ২০২১, ০৫:৪২ অপরাহ্ন

সৌদি যুবরাজের মাস্টারপ্ল্যান কি?

আমাদের কথা ডেস্ক
  • আপডেট : বুধবার, ১৩ মে, ২০২০

নিউজ ডেস্ক: করোনা মহামারিতে অনেকটাই অচল অর্থনীতি, তার ওপর তলানিতে গিয়ে ঠেকেছে জ্বালানি তেলের দাম। এ অবস্থায় বড় অংকের বাজেট ঘাটতিতে পড়তে যাচ্ছে তেলনির্ভর দেশ সৌদি আরব। পরিস্থিতি সামাল দিতে সরকার ভ্যাট তিনগুণ বাড়ানোর পাশাপাশি সরকারি চাকরিজীবীদের জীবনযাপন ভাতা কমিয়েছে। তাতে যে খুব একটা বেশি সুবিধা করা যাবে বলার সুযোগ নেই।

বিশ্লেষকরা বলছেন, বাজেট ঘাটতি পূরণ করতে হলে তেলের দাম কয়েকগুণ বাড়াতে হবে, যা অনেকটাই অসম্ভব। তার ওপর ইয়েমেনে হামলা করে বড় অংকের সামরিক ব্যয় করতে হচ্ছে সৌদি আরবকে। বিশেষকরে অস্ত্র কেনার পেছনে। ফলে সৌদি যুবরাজ ভিশন ২০৩০ নামে যে উচ্চাকাংখী মহাপরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছেন তা বাস্তবায়ন কঠিন হয়ে যাচ্ছে।

সৌদিআরবের রাজেস্বে ৯০ শতাংশ আসে তেল বিক্রি থেকে। কিন্তু তেলের দাম ও চাহিদা কমে যাওয়ায় রাজস্ব আয়ও ব্যাপকভাবে কমে গেছে। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) বলছে, গত মাসে জ্বালানি তেলের চাহিদা কমেছে প্রায় ৩০ শতাংশ। এ বছর আরো ১০ শতাংশ কমবে। এ অবস্থায় চলতি বছর সৌদির অর্থনীতি ২.৩ শতাংশ সংকোচিত হবে। অর্থাৎ অর্থনীতি বাঁচানোই এখন দায় হয়ে পড়েছে সৌদি আরবের জন্য।

কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটির সিনিয়র গবেষক ক্রিস্টফ রোল বলেন, ‘তেলের দর ২৫ ডলারের নীচে নেমে গেছে। যে দরপতন ঘটেছে তা ভয়ানক। দেশটির অর্থনৈতিক বৈচিত্রকরণের যে ভিশন ২০৩০ গ্রহণ করা হয়েছে তা অনেক ব্যয়বহুল। এ অবস্থায় মহাপরিকল্পনা এগিয়ে নেয়া অনেক কঠিন হবে। তাছাড়া প্রকল্পগুলো এখনও পর্যন্ত কোন ফলও বয়ে আনেনি।’

তিনি বলেন, ‘অনেক পর্যটন প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে যাতে বিপুল অংকের অর্থ প্রয়োজন। যেমন রেড সি’র উপকূলে ৫০০ বিলিয়ন ডলার ব্যয়ে যে শহর গড়ার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। তা এখন অনেকটাই অসম্ভব মনে হচ্ছে।’ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন সৌদি পরিসংখ্যানবিদ জানান, তার সংশয় আছে ‘ভিশন ২০৩০’ আসলে কতটা বাস্তবায়ন করা যাবে।

সূত্র: সিএনএন মানি।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই জাতীয় আরো খবর
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
Maintained By Ka Kha IT