আমাদেরকথা ২৪ডেস্ক: বিশ্বকাপের আর বাকি একমাস। এমন সময়ে এসে চারবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ইতালি নিয়োগ দিলো নতুন কোচ। বিশ্বকাপের আগে এসব কর্মকাণ্ড অবশ্য ইতালি ফুটবল সমর্থকদের মনের জ্বালাই বাড়াবে শুধু। কারণ, রাশিয়া বিশ্বকাপে যে খেলতেই পারছে না আজ্জুরিরা। বাছাই পর্বই উৎরাতে পারেনি তারা। ৬০ বছর পর বিশ্বকাপে নেই ইতিহাসের অন্যতম সফল দলটি।

সোমবারই ইতালি ফুটবল ফেডারেশন ঘোষণা করেছে তাদের নতুন কোচের নাম। রবার্তো মানচিসির সামনে বিশাল চ্যালেঞ্জ। ইতালি ফুটবলের মান-সম্মান যেভাবে ধুলায় লুটে গেছে, সেটাকে ফিরিয়ে আনাই এখন সবচেয়ে বড় কাজ তার। আগামী বিশ্বকাপে খেলাই নয় শুধু, বিশ্বকাপ জয়ের মিশন নিয়েই মাঠে নামতে হবে মানচিনিকে। সে সঙ্গে থাকছে ইউরো জয়ের মিশনও।


রাশিয়ান ক্লাব জেনিত সেন্ট পিটার্সবার্গের কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন ৫৩ বছর বয়সী মানচিনি। গিয়াম্পিরো ভেনচুরার স্থলাভিষিক্ত হলেন তিনি। গত বছর নভেম্বরেই ভেনচুরাকে বরখাস্ত করেছিল ইতালি ফুটবল ফেডারেশন। তার অধীনেই বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে মুখ থুবড়ে পড়েছিল ইতালি। এমনকি প্লে-অফে পর্যন্ত তারা টিকতে পারেনি সুইডেনের মত দেশের সামনে।

ইতালি জাতীয় দলের হয়ে মাত্র ৩৬টি ম্যাচ খেলেছিলেন রবার্তো মানচিনি। তবে কোচিং ক্যারিয়ারে এসেই তার নাম-ডাক ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে চারদিকে। ইতালি সিরি-এ ক্লাব ইন্টার মিলানের কোচ ছিলেন তিনি। তার আগে ছিলেন ফিওরেন্তিনা, ল্যাজিওর কোচ। তবে ইন্টারমিলানের হয়ে তিনটি সিরি-এ শিরোপা জয় করেন।

এরপরই ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে ম্যানসিটির কোচ হয়ে আসেন রবার্তো মানচিনি। তার অধীনেই প্রিমিয়ার লিগে প্রথমবারেরমত ২০১১-১২ মৌসুমে শিরোপা জয় করতে সক্ষম হয় ম্যানচেস্টার সিটি। যদিও এরপর বরখাস্ত হয়েছিলেন তিনি ম্যানসিটি থেকে। ২০১৩ সালে ম্যানসিটি থেকে চলে যান তুরস্কের ক্লাব গ্যালাতাসারে। ২০১৪ সালে আবারও ফিরে যান ইন্টারমিলানে। ২০১৭ সালে পাড়ি জমান রাশিয়ায়, জেনিত সেন্ট পিটার্সবার্গে।

অবশেষে ২০১৮ সালে রবার্তো মানচিনি চলে আসলেন জাতীয় দলের কোচিংয়ে। দায়িত্ব নিলেন ডুবে যাওয়া টাইটানিক ইতালিয়ান ফুটবলের। জানা গেছে, ইতালি ফুটবল ফেডারেশনের সঙ্গে দুই বছরের চুক্তি করেছেন মানচিনি। তার প্রথম দায়িত্বই হলো, ২০২০ সালের ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপ।

You Might Also Like

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email address will not be published. Required fields are marked (*).