অামাদেরকথা ২৪ডেস্ক: জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের ডিনারে জুতার ভিতরে ডেজার্ট পরিবেশন করে তুমুল সমালোচনার মুখে পড়েছেন ইসরায়েলের জনপ্রিয় এক পাচক।

রাষ্ট্রীয় সফরে আসা অতিথির সংস্কৃতির সঙ্গে সাংঘর্ষিক কোনো কিছু তার সামনে পরিবেশনের অনুমতি মিলল কীভাবে এই প্রশ্নও তুলেছেন অনেকেই।

এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আবের পাতে জুতার ভিতরে ডেজার্ট পরিবেশনের সুযোগ দিয়ে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু ‘অগ্রহণযোগ্য কাজ’ করেছেন বলেও মন্তব্য কূটনীতিকদের।

তারা বলছেন, খাবার ঘরের টেবিলে জুতার উপস্থিতিকে ভালো চোখে দেখা হয় না বিশ্বের বেশিরভাগ সংস্কৃতিতেই। বাইরের জুতা ঘরের ভেতরে দেখতে নারাজ জাপানিদের ক্ষেত্রে এ ধরনের আচরণ আরও অভব্য।

গত সপ্তাহে জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে ও তার স্ত্রী আকি আবে ইসরায়েল সফরে গেলে তাদের ডিনারে জুতার ভিতরে মোড়ানো এ ডেজার্ট সরবরাহ করা হয় বলে জানিয়েছে ওয়াশিংটন পোস্ট।

উচ্চ পর্যায়ের বেশ কয়েকটি বৈঠকের পর গত ২ মে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু ও তার স্ত্রী সারা নেতানিয়াহুর সরকারি বাসভবনে জাপানের প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে দেওয়া ভোজে এ ঘটনা ঘটে।

খ্যাতনামা ইসরায়েলি পাচক সেগেভ মোশে দ্বিতীয়বার জাপান সফরে আসা শিনজো-আকি দম্পতিকে ডিনার পরিবেশন করেছিলেন। উপাদেয় একের পর এক খাবারের ধারাবাহিকতায় জাপানি প্রধানমন্ত্রী ও তার স্ত্রীকে শৈল্পিক উপস্থাপনায় চকচকে চামড়ার জুতায় পরিবেশন করা হয় সুস্বাদু চকলেট প্রলাইনস।

যে পরিবেশনায় জাপানি কূটনীতিকরা ছাড়াও দেশটিতে একসময় কাজ করা ইসরায়েলি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও অন্যান্য উচ্চ-পদস্থ কর্মকর্তারাও স্তম্ভিত হয়েছেন বলে সোমবার এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে ইসরায়েলের জনপ্রিয় দৈনিক ইয়েদিয়ত আহারোনত।

“এটি খুবই অসংবেদনশীল সিদ্ধান্ত ছিল। জাপানি সংস্কৃতিতে জুতার মতো নিচু স্তরের আর কিছু নেই, ঘরে যেমন তারা জুতা পরেন না, তাদের অফিসেও আপনি জুতা খুঁজে পাবে না। এটা প্রথম মাত্রার অমর্যাদা হয়েছে,” পরিচয় প্রকাশ করা হয়নি এমন এক জ্যেষ্ঠ ইসরায়েলি কূটনীতিক নেতানিয়াহুর ডিনারের ঘটনা নিয়ে ইয়েদিয়ত আহারোনতকে এমনটাই বলেছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক জাপানি কূটনীতিকও আবের পাতে জুতায় পরিবেশিত ডেজার্ট নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

“বিশ্বে কোথাও এমন সংস্কৃতি নেই, যেখানে আপনি টেবিলের ওপরে জুতা রাখতে পারবেন। বিশিষ্ট ওই পাচক কি ভেবেছিলেন? যদি এটি রসিকতাও হয়, তাও আমরা একে মজা মনে করছি না। প্রধানমন্ত্রীর হয়ে আমরা এতে অপমানিত বোধ করছি,” বলেন তিনি।

ইসরায়েলের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় পরে এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, খাবারের ডিশগুলোর অনুমোদনের ক্ষেত্রে তাদের হাত ছিল না।

“আমরা পাচককে শ্রদ্ধা ও তারিফ করছি। তিনি বেশ সৃজনশীল,” বিবৃতিতে বলেছে ইসরায়েলি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

সেগেভের এই ‘সৃজনশীলতার’ নিদর্শন দেখা গেছে গত বছরের মে মাসেও। মার্কিন প্রেসিডেন্টের ইসরায়েল সফরের সময় ট্রাম্প ও নেতানিয়াহুর দুই মাথার আদলে বানানো ডেজার্ট সরবরাহ করেছিলেন খ্যাতনামা এ শেফ।

কূটনীতিকরা সমালোচনা করলেও সেগেভ অবশ্য তার পরিবেশনায় মোটেও আপত্তিকর কিছু খুঁজে পাচ্ছেন না। রোববার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ইনস্টাগ্রামে নিজের অ্যাকাউন্টে আবেকে পরিবেশন করা জুতায় মোড়ানো ডেজার্টটির ছবিও দিয়েছেন তিনি।

“আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন শিল্পী টম ডিক্সনের একটি ভাস্কর্যর মধ্যে ডেজার্টটি সরবরাহ করা হয়েছিল। ডিক্সনের বিভিন্ন সৃষ্টি বিশ্বের বড় বড় সব জাদুঘরে প্রদর্শিত হয়েছে, ইসরায়েলের খাবারে এবারই প্রথম। জুতার আদলে ধাতু দিয়ে বানানো অতি উচ্চ-মানের শিল্প ছিল এটি; সত্যিকারের জুতা ছিল না,” সেগেভের প্রচারের দায়িত্বে থাকা প্রতিষ্ঠানের বিবৃতিতে এমনটাই বলা হয়েছে বলে জানিয়েছে ইয়েদিয়ত আহারোনত।

ইনস্টাগ্রামে সেগেভকে অনুসরণ করা ৭২ হাজার ফলোয়ারের অনেকেই অবশ্য ভিন্নমত প্রকাশ করেছেন।

“যখন আপনি কূটনীতিক পর্যায়ে খাবার পরিবেশন করবেন, ন্যুনতম যা আপনি করতে পারেন, তা হল- অতিথি সম্পর্কে একটু খোঁজখবর করা। জাপানে জুতাকে নিকৃষ্ট হিসেবে বিবেচনা করা হয়। তারা সবসময়ই বাড়িতে ঢোকার আগে জুতা খুলে রাখেন, নিজেদেরটা যেমন, অন্যদেরটাও,” বলেন এক ব্যবহারকারী।

আরেক ব্যবহারকারী বলেন, “ডিনারে জুতা পরিবেশন করা যে ভুল, এটা বুঝতে আপনার কোনো সংস্কৃতি সম্বন্ধে না জানলেও চলবে।”

You Might Also Like

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email address will not be published. Required fields are marked (*).