ফ্রান্সে দুইটি হেলিকপ্টারের সংঘর্ষে দুর্ঘটনায় ৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার দুই সামরিক বিমানের সংঘর্ষে এ প্রাণহানির ঘটনা ঘটে।
দেশের দক্ষিণাঞ্চলের উপকূলীয় শহর সেন্ট-ত্রোপেজ সংলগ্ন এলাকায় মিলিটারি ফ্লাইং স্কুলের দুই হেলিকপ্টারের মধ্যে এ সংঘর্ষ ঘটে। তাৎক্ষণিকভাবে দুর্ঘটনার কারণ জানা যায়নি।

পুলিশ জানিয়েছে, দুর্ঘটনাকবলিত দুই হেলিকপ্টারের একটিতে তিন ক্রু এবং অন্যটিতে দুই ক্রু ছিলেন। তাদের কেউ বেঁচে নেই।

মিলিটারি ফ্লাইং স্কুলটির ওয়েবসাইটের তথ্য অনুযায়ী, তাদের ৮২টি হেলিকপ্টার রয়েছে। ফ্রান্স, জার্মানি ও স্পেনের পাইলটরা এখানে প্রশিক্ষণ নিয়ে থাকেন।

বিধ্বস্ত হওয়া ফ্রান্সে তৈরি হওয়া গাজেল হেলিকপ্টার ১৯৭০ সাল থেকে ব্যবহৃত হচ্ছে। যা দিয়ে হালকা হামলা এবং প্রশিক্ষণের জন্য ব্যবহৃত হয়। স্থানীয় কাউন্সিলর জিন-পিয়ের ভেরেন বলেন, হেলিকপ্টারটি নিয়মিত এই এলাকা দিয়ে উড়ে যেত এবং এর আগে দুর্ঘটনা ঘটেনি। এর ধ্বংসস্তুপ একটি বড় এলাকা জুড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে; যা একটি “ভয়ঙ্কর আঘাত” বলে উল্লেখ করেন তিনি।

প্রতিরক্ষা মন্ত্রী ফ্লোরেন্স পাখলে এক টুইট বার্তায় এই দুর্ঘটনায় হতাহতের জন্য গভীর শোক প্রকাশ করে দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

রাষ্ট্রপতি ইমানুয়েল ম্যাঁক্র তার শোকবার্তায় বলেন, এই দুর্ঘটনায় নিহতরা ফরাসি জাতির ভবিষ্যতের জন্য নিজেদের প্রস্তুত করছিলেন; ফ্রান্সের মানুষ তাদের সবসময় শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করবে।

সেনাবাহিনী চিফ অফ স্টাফ জ্যান-পিয়ের বোসা দুর্ঘটনায় নিহত প্রশিক্ষণার্থীর স্বজন ও বন্ধু এবং সহকর্মীদের সাথে সহমর্মিতা প্রকাশ করেছেন।

ফ্রান্সের নিরাপত্তা বাহিনীর সর্বশেষ হেলিকপ্টার দুর্ঘটনা ঘটে ২০১৬ সালের মে মাসে; যখন একটি পুলিশের হেলিকপ্টার পিরেনিস পর্বতমালার কটেরেখের কাছাকাছি বিধ্বস্ত হলে চার জন আরোহীর সবাই মারা যায়। পরে তদন্তে জানা যায়, ওই দুর্ঘটনা ঘটে পাইলটের ভুলের কারণে।

You Might Also Like

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email address will not be published. Required fields are marked (*).